১৭ জুলাই, ২০২৪, বুধবার

যুক্তরাজ্যে মূল্যস্ফীতির চাপে খাবারের ব্যয় কমাচ্ছে মানুষ

Advertisement

মূল্যস্ফীতির চাপ অসহনীয় হয়ে উঠেছে যুক্তরাজ্যের মানুষের কাছে। এই পরিস্থিতিতে খাদ্য ব্যয় কমাতে বাধ্য হচ্ছেন দেশটির মানুষ।

বিবিসির সংবাদে বলা হয়েছে, যুক্তরাজ্যের অফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিসটিকসের (ওএনএস) তথ্যানুসারে, ব্রিটেনের কয়েক হাজার পরিবার গত এক পক্ষে খাদ্য ব্যয় কমিয়েছে। মূল্যস্ফীতির সঙ্গে লড়াই করতে গিয়ে তারা এই পথ বেছে নিয়েছে।

সুপারমার্কেট অ্যাসডা ও টেসকোর তথ্যেও জানা গেছে, গ্রাহকেরা খাবার বাবদ ব্যয় কমাচ্ছেন। পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে ভোক্তারা অ্যাসডার বিক্রয়কর্মীদের বলছেন, বিল ৩০ পাউন্ড হলেই যেন আর কোনো পণ্য স্ক্যান করা না হয়, অর্থাৎ বিল ৩০ পাউন্ড হলেই আর কেনাকাটা নয়।

অন্যদিকে ব্রিটেনের বৃহত্তম সুপারমার্কেট টেসকো বলেছে, উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে ভোক্তারা তাঁদের খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করতে বাধ্য হচ্ছেন।

ওএনএসের তথ্যানুসারে, গত মে মাসে যুক্তরাজ্যের সুপারমার্কেটগুলোর বিক্রি ১ দশমিক ৫ শতাংশ এবং বিশেষায়িত দোকান, যেমন মাংসের দোকান ও বেকারিতে বিক্রি কমেছে ২ দশমিক ২ শতাংশ।

ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়ামের প্রধান নির্বাহী হেলেন ডিকিনসন বিবিসিকে বলেন, ‘অনেক ক্রেতাই ব্যয় কমাচ্ছেন, বিশেষ করে খাবারের ব্যয়। যাঁরা আগে উচ্চ মূল্যের পণ্য কিনতেন, তাঁদের অনেকেই এখন কম দামি পণ্য কিনছেন।’
এ ছাড়া সামগ্রিকভাবে মে মাসে খুচরা বিক্রয় কমেছে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ। বিক্রয় প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছে শূন্য দশমিক ৪ শতাংশ, যদিও আগের প্রাক্কলন ছিল, প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াবে ১ দশমিক ৪ শতাংশ।

যুক্তরাজ্যের মূল্যস্ফীতির হার এখন ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। মে মাসে দেশটির মূল্যস্ফীতির হার দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ১ শতাংশ, ১৯৮২ সালের পর সর্বোচ্চ।

ওএনএসের তথ্যানুসারে, ২০২১ সালের মে মাসের তুলনায় এ বছরের মে মাসে খনিজ পানির দাম ১৮ দশমিক ৩ শতাংশ, অলিভ অয়েলের দাম ১৮ শতাংশ, আটার দাম ১৬ দশমিক ৩ শতাংশ, পাস্তার দাম ১৬ দশমিক ১ শতাংশ, পূর্ণ ননিযুক্ত দুধ ১৫ দশমিক ১ শতাংশ, পোলট্রি ১৩ দশমিক ৫ শতাংশ, মাখন ১৩ দশমিক ১ শতাংশ, ডিম ১২ দশমিক ৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement