১৭ জুলাই, ২০২৪, বুধবার

এনবিএফআই প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিইও নিয়োগে অভিজ্ঞতা লাগবে ২০ বছর

Advertisement

এখন থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপকেরাও হতে পারবেন সিইও।

নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের (এনবিএফআই) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিয়োগে অভিজ্ঞতা বাড়িয়ে ২০ বছর করা হয়েছে। আগে ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সক্রিয় কর্মকর্তা হিসেবে ১৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকলেই সিইও পদে নিয়োগের জন্য আবেদন করা যেতো।

এক্ষেত্রে বাণিজ্যিক ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী বা তার আগের পদে কমপক্ষে ২ বছরের অভিজ্ঞতা থাকার বিষয়টি অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

এছাড়া আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে যেগুলোর স্থিতিপত্রের আকার এক হাজার কোটি টাকার কম, সেসব প্রতিষ্ঠানে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মহাব্যবস্থাপক, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট (এসইভিপি) বা তার উপরের পর্যায়ের কর্মকর্তাদেরও সিইও হিসেবে নিয়োগ দেওয়া যাবে।

তবে তাদের শাখা ব্যবস্থাপক হিসেবে অন্তত ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ ব্যাংকের সক্রিয় কর্মকর্তা হিসেবে কমপক্ষে ২০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। আগের নীতিমালা অনুযায়ী এমন সুযোগ ছিল না।

গতকাল সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অফ ফিন্যানসিয়াল ইনস্টিটিঊট এন্ড মার্কেটস এ সংক্রান্ত এক সার্কুলারে সিইও নিয়োগের নীতিমালার এসব পরিবর্তনের কথা জানায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা টিবিএসকে বলেন, “আগের নীতিমালা অনুযায়ী শুধুমাত্র ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সিইও বা ডিএমডিরা এফআইগুলোর সিইও পদে নিয়োগ পেতে আবেদন করতে পারতেন। আমাদের দেশে তারা সংখ্যায় খুব বেশি নন। ফলে আমাদের এই পদে যোগ্য ব্যক্তি খুঁজে পেতে অনেক সময়ই সংকটে পড়তে হতো।”

তিনি আরো বলেন, “নীতিমালা সংশোধন করায় এখন বাণিজ্যিক ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক বা এসইভিপিরা পদটিতে নিয়োগ পেতে আবেদন করতে পারবেন। যারা ব্যাংকগুলোর উপরের এসব পদে চাকরি করেছেন, তাদের লার্জ লোনসহ অনেক বড় সিস্টেম হ্যান্ডেল করার অভিজ্ঞতা আছে। ব্যাংকের তুলনায় আর্থিক প্রতিষ্ঠান আকারে ও লেনদেনে ছোট। তাই এই কর্মকর্তারা দক্ষতার সঙ্গে এসব প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার সক্ষমতা রাখেন বলে নীতিমালা সংশোধন করে তাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।”

সার্কুলারে সিইও নিয়োগ নীতিমালার ২ নং অনুচ্ছেদ ‘অভিজ্ঞতা ও উপযুক্ততা’ প্রতিস্থাপন করে নতুন অনুচ্ছেদ ‘অভিজ্ঞতা, উপযুক্ততা ও নির্বাচন প্রক্রিয়া’ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

নতুন এই অনুচ্ছেদে যোগ্য প্রার্থীদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা নিশ্চিত করতে দুইটি করে বাংলা ও ইংরেজি পত্রিকা এবং প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে স্বচ্ছ ইমেজের যোগ্য ব্যক্তিকে নিয়োগ দিতে বলা হয়েছে।

সেইসঙ্গে, আবেদন করা প্রার্থীদের মধ্য থেকে যোগ্যতম প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে স্বচ্ছতার সাথে আবেদনপত্র মূল্যায়নে প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদিত একটি মূল্যায়ন প্রক্রিয়া থাকতে হবে বলেও সার্কুলারে বলা হয়েছে।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement