২২ জুন, ২০২৪, শনিবার

টবে কলমি শাক চাষ করবেন যেভাবে

Advertisement

বাড়ির আশেপাশে একপ্রকার কলমি শাক জন্মায় চাষে এবং পরিচর্যা ছাড়ায়। প্রাকৃতিকভাবে কলমি শাক সাধারণত পানিতে বা পানির ধারের ভেজা মাটিতে দেখা যায়। তেমন যত্নেরও প্রয়োজন হয় না। কলমি শাক মালয়ী ও চীনা খাবারে ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে। বাংলাদেশে কিন্তু এটি শাক হিসাবেই বেশি ব্যবহার দেখা যায়। সাধারণত ভাজি হিসাবে রান্না করা হয় কলমি শাক। তাছাড়া মাছ দিয়েও রান্না করে খাওয়া যায়। বাংলাদেশে সম্প্রতি বিভিন্ন অঞ্চলে কলমি শাকের বাণিজ্যিক চাষ শুরু হয়েছে। কলমি শাকের উপকারিতার কথা ভেবে দিন দিন কলমি শাকের ব্যবহার বাড়ছে। অন্যান্য শাকের তুলনায় এই শাক খুবই সস্তা। অথচ পুষ্টিগুণে অনন্য একটি শাক। এ শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি এবং পর্যাপ্ত পরিমানে লৌহ। জন্মের পর শিশু মায়ের বুকের দুধ না পেলে মাকে কলমি শাক রান্না করে খাওয়ালে শিশু পর্যাপ্ত পরিমানে দুধ পাবে। নিয়মিত কলমি শাক খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোললে কোষ্ঠ কাঠিন্য দূর হয়। শাকটি কোন রকম রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার না করেই টবে চাষ করা যায়। ছাদ বাগানে কলমি চাষ খুব লাভজনক। একবার চাষ করে বেশ কয়েক দফা ফলন পাওয়া যায়।

তাহলে আসুন জেনে নিই টবে কিভাবে কলমি শাক চাষ করা যায়-

কলমি শাক প্রায় সব ধরণের মাটিতেই চাষ করা যায়। কলমি শাক চাষের জন্য বেশি উপযোগি কম গভীরতার পাত্র। তাছাড়াও ছাদ বা ব্যালকনিতেও কলমি চাষ সম্ভব।

অতিরিক্ত পানি যেন জমে না থাকে সে জন্য প্রথমে টব/ড্রামের নিচে ৩/৪ টি ছিদ্র করে নিতে হবে। ইটের ছোট ছোট টুকরা দিয়ে টবের তলার ছিদ্রগুলো বন্ধ করে দিতে হবে। এখন ৭-৮ দিন ২ ভাগ দোআঁশ কিংবা বেলে- দোআঁশ মাটি এবং ১ ভাগ গোবর একত্রে মিশিয়ে ড্রাম বা টব ভরে পানিতে ভিজিয়ে রেখে দিতে হবে। ৭-৮ দিন পর পূণরায় মাটি খুচিয়ে দিতে হবে। যখন মাটি খুব ঝুরঝুরে হবে তখন কলমি শাকের বীজ বপন করতে হবে । সবচেয়ে ভাল হয় ৫-৬ ইঞ্চি দূরত্বে একসংগে ১০-১২টি করে বীজ বপন করা। বীজ বপনের পর হালকা পানি দিতে হবে।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement