১৬ এপ্রিল, ২০২৪, মঙ্গলবার

দুই ডোজ টিকায় আজীবন করোনামুক্তি!

Advertisement

দাবিটা যদি সত্যি হয়, তাহলে করোনা মহামারির এই ভয়াল সময়ে এটিকে স্বস্তিদায়কই বলা যায়। কারন অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড টিকা ‘কোভিশিল্ড’ নেওয়া থাকলে করোনার সংক্রমণ থেকে আজীবন সুরক্ষা পাওয়া যেতে পারে- এমন দাবি করেছেন গবেষকরা। বিজ্ঞান জার্নাল নেচারে প্রকাশিত রিপোর্টে এমনটাই জানিয়েছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও সুইজারল্যান্ডের একদল গবেষক।

গবেষণায় বলা হয়েছে, অ্যান্টিবডি তৈরি ছাড়াও এই টিকা ‘সার্চ-অ্যান্ড-ডেসট্রয় টি-সেল’কে প্রস্তুত করে। এ যেন শরীরের মধ্যে টি-সেলের ‘প্রশিক্ষণ শিবির’। ফলে এই টিকা ভবিষ্যতে নতুন ভ্যারিয়েন্টের করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধেও সমান কার্যকর হবে। ফলে নতুন ভ্যারিয়ান্ট আসলেও টি সেলগুলো সেটিকে প্রতিহত করবে।

গবেষকদের দাবি, কোভিশিল্ড টিকায় তৈরি অ্যান্টিবডি শেষ হওয়ার অনেক পরেও শরীরে এই গুরুত্বপূর্ণ কোষগুলো তৈরি হতে থাকবে। ফলে সম্ভবত সারাজীবনই তা অব্যাহত থাকবে।

সুইজারল্যান্ডের গবেষক বুখার্ড লুডউইগ জানান, ‘এই সেলুলার প্রশিক্ষণ শিবিরগুলো থেকে যে টি-কোষগুলো আসে তাদের মধ্যে খুব উচ্চ স্তরের ফিটনেস থাকছে। ফলে ভবিষ্যতে মহামারি এই ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে এটিই রক্ষা করবে।’

আগের এক গবেষণায় দেখা গেছে, ফাইজার এবং মডার্নার মতো এমআরএনএ প্রযুক্তিতে তৈরি টিকাগুলোর চেয়েও ‘টি-কোষ’ তৈরিতে অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা ​কোভিশিল্ড বেশি কার্যকর।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি এই টিকাটি ভারতে উৎপাদন করছে সেরাম ইনস্টিটিউট। সেরামের তৈরি এই কোভিড টিকা ‘কোভিশিল্ড’ নামে ​পরিচিত। বাংলাদেশে এই টিকা দেওয়া হয়েছে এবং অনেকে দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষমান রয়েছেন।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement