২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, বৃহস্পতিবার

বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস আজ

Advertisement

আজ ১২ জুন (শনিবার)  বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস। দিবসটি উপলক্ষে  শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এবং ইউনিসেফসহ বেশ কিছু বেসরকারি সংস্থা যৌথভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। দেশে এবছর ‘মুজিববর্ষের আহ্বান, শিশু শ্রমের অবসান’ প্রতিপাদ্যে দিবসটি পালিত হচ্ছে।  এছাড়াও কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে।

বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

শুক্রবার (১১ জুন) দেওয়া বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকার শিশুশ্রম নিরসনে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে অঙ্গীকারবদ্ধ। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে শিশুশ্রম-প্রতিরোধ ও শিশুদের কল্যাণে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সংশ্লিষ্ট সকলকে কার্যকর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন।

শিশুশ্রম নিরসনে ২০১০ সালে ‘জাতীয় শিশুশ্রম-নিরসন নীতিমালা’ প্রণয়নের কথা তুলে ধরে রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে বলেন, এ নীতিমালা-বাস্তবায়নে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা তৈরি ও শিশুদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ কাজের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। শিশুশ্রম নির্মূলে জাতীয়, বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে চারস্তর বিশিষ্ট প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়া এ বছর ছয়টিসহ এ পর্যন্ত মোট আটটি শিল্প খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করা হয়েছে।

সবার আন্তরিক প্রচেষ্টায় সকল প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করার মাধ্যমে বাংলাদেশকে ‘শিশুশ্রমের অভিশাপ’ থেকে মুক্ত করা সম্ভব হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বাণীতে বলেন, দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তথা শিশুদের শিক্ষা, নিরাপত্তা ও সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে আমরা বদ্ধপরিকর। আমাদের সরকার জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদ ও ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম বিষয়ক আইএলও কনভেনশন অনুসমর্থন করেছে।

শিশুশ্রম-নিরসনের লক্ষ্যে ‘জাতীয় শিশুশ্রম নিরসন নীতি-২০১০’ প্রণয়ন করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসডিজি’র লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ২০২৫ সালের মধ্যে দেশকে সকল ধরনের শিশুশ্রম থেকে মুক্ত করতে হবে। এসডিজিকে সামনে রেখে ২০২৫ সাল পর্যন্ত জাতীয় কর্মপরিকল্পনার মেয়াদ নির্ধারণ করা হয়েছে। এই কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ‘জাতীয় শিশুশ্রম কল্যাণ পরিষদ’ কাজ করছে। গৃহকর্মে নিয়োজিত শিশুদের অধিকার ও সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ‘গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতি-২০১৫’ প্রণয়ন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে জাতিসংঘ ২০২১ সালকে ‘আন্তর্জাতিক শিশুশ্রম নিরসন বর্ষ’ হিসেবে ঘোষণা করে। আইএলও ১৯৯২ সালে প্রথম শিশু শ্রমের জন্য প্রতিরোধ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। সে অনুযায়ী ২০০২ সালের ১২ জুন থেকে আইএলও বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে প্রতিবছর ‘শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস’ হিসেবে দিনটি পালন করে আসছে।

তবে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে বাস্তবতায় শিশুশ্রম বেড়ে যাওয়ার আশংকা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সাম্প্রতিক গবেষণা, একদিকে স্কুল বন্ধ, আরেক দিকে পরিবারের আয় কমে যাওয়ায় অনেক শিশুর জন্য শ্রমে যুক্ত হওয়া এবং বাণিজ্যিকভাবে যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। এরকম পরিস্থিতিতে পরিবারের প্রতিটি সদস্য মিলে টিকে থাকার লড়াইয়ে শ্রমজীবী শিশুর সংখ্যা বেড়ে যেতে পারে।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ও ইউনিসেফ ২০২০ সালের নতুন এক প্রতিবেদনে বলেছে, কোভিড-১৯ সংকটের ফলশ্রুতিতে আরও লাখ লাখ শিশুকে শিশু শ্রমে ঠেলে দেওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, যা গত ২০ বছরের অগ্রগতির পর প্রথম শিশুশ্রম বাড়িয়ে দিতে পারে। ‘কোভিড-১৯ ও শিশু শ্রম: সংকটের সময়, পদক্ষেপের সময়’ শীর্ষক প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, ২০০০ সাল থেকে এ পর্যন্ত শ্রমে নিয়োজিত শিশুর সংখ্যা ৯ কোটি ৪০ লাখ কমেছে, কিন্তু এই অর্জন এখন ঝুঁকির মুখে।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement