১৭ জুলাই, ২০২৪, বুধবার

যুক্তরাষ্ট্রের ৩ কোটি টিকার তালিকায় বাংলাদেশ

Advertisement
যুক্তরাষ্ট্রের ৩ কোটি ডোজ টিকা বিতরণের দুই তালিকায় বাংলাদেশের নাম স্থান পেয়েছে। কোভ্যাক্সের মাধ্যমে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার আট দেশের পাশাপাশি এশিয়ার ১৮টি দেশকে নতুন করে ১ কোটি ৬০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে হোয়াইট হাউজ। এ ছাড়া বিশ্বের আরও ৩০টি দেশ ও জোটকে যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি যে ১ কোটি ৪০ লাখ টিকা দেবে, সেই তালিকায়ও রয়েছে বাংলাদেশের নাম। টিকা নিয়ে হোয়াইট হাউজের এক ঘোষণায় এ তথ্য জানা গেছে।
এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, দরিদ্র দেশগুলোতে টিকার সংকট তীব্র আকার ধারণ করছে। এসব দেশকে পর্যাপ্ত টিকা সরবরাহ দেয়া হয়নি। দেশগুলোতে করোনাভাইরাসের টিকা শেষ হয়ে যাচ্ছে।
হোয়াইট হাউজ সোমবার বিশ্বজুড়ে করোনা মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের নিজের মজুত থেকে কোভ্যাক্সের আওতায় এবং সরাসরি সাড়ে পাঁচ কোটি টিকা বণ্টনের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে। ওই পরিকল্পনায় বিশ্বের কোন দেশে কত টিকা পাঠানো হবে, সে তথ্য দেওয়া হয়েছে।
৩ জুন হোয়াইট হাউজ আড়াই কোটি টিকা বণ্টনের ঘোষণা করেছিল। তাতে এশিয়ার দেশগুলোর জন্য ৭০ লাখ টিকা বরাদ্দ রয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশকে রাখা হয়েছে। হোয়াইট হাউজের ওয়েবসাইটে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী দ্বিতীয় দফায় ঘোষণা করা সাড়ে পাঁচ কোটি ডোজ টিকার মধ্যে ৪ কোটি ১০ লাখ টিকা বিতরণ হবে কোভ্যাক্সের আওতায়। এর মধ্যে কোভ্যাক্স থেকে দক্ষিণ আমেরিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলের দেশগুলোর জন্য প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ, এশিয়ার দেশগুলোর জন্য প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখ এবং আফ্রিকার দেশগুলোর জন্য ১ কোটি ডোজ টিকা বরাদ্দ রয়েছে। আর ১ কোটি ৪০ লাখের মতো টিকা ‘আঞ্চলিক অগ্রাধিকারের’ ভিত্তিতে সরাসরি দেওয়া হবে বিভিন্ন দেশে। এ তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, ইউক্রেন, ভিয়েতনামসহ ৩০টি দেশ। হোয়াইট হাউজ জানায়, যুক্তরাষ্ট্র নিজের মজুত থেকে ফাইজার, মডার্না ও জনসন অ্যান্ড জনসনের উৎপাদিত টিকা সরবরাহ করবে। তবে মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের (এফডিএ) অনুমোদন পেলে অ্যাস্ট্রাজেনেকার উৎপাদিত টিকাও এ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।
দরিদ্র দেশগুলোতে টিকা ফুরিয়ে যাচ্ছে : 
ডব্লিউএইচও বলছে, বেশির ভাগ দরিদ্র দেশ টিকার সংকটে রয়েছে। কোভ্যাক্স কর্মসূচি থেকে পর্যাপ্ত টিকা সরবরাহ করা হচ্ছে না। দরিদ্র দেশগুলোতে করোনাভাইরাসের টিকা শেষ হয়ে যাচ্ছে। এমন দেশের সংখ্যা অনেক। সম্প্রতি বাংলাদেশ, উগান্ডা, জিম্বাবুয়ে, ত্রিনিদাদ ও টোব্যাগোর মতো দেশগুলোতে টিকা ফুরিয়ে গেছে। সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ব্রিফিংয়ে ডব্লিউএইচওর সিনিয়র উপদেষ্টা ড. ব্রুস আইলওয়ার্ড স্বীকার করেছেন যে, টিকার এ সংকট কঠিন আকার ধারণ করেছে। তিনি বলেন, কোভ্যাক্সের সঙ্গে যুক্ত নিম্ন আয়ের ৮০টি দেশের মধ্যে অর্ধেকের বেশির কাছে টিকাদান কর্মসূচি সচল রাখার মতো পর্যাপ্ত টিকা নেই। বাস্তবে এ সংখ্যা অনেক বেশি হতে পারে। টিকার সংকট মেটাতে কিছু দেশ বিকল্প ব্যবস্থা করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু সেক্ষেত্রে টিকা বাজার মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্য দিতে হয়েছে বা হচ্ছে।
Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement