১৮ জুন, ২০২৪, মঙ্গলবার

চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ১৪; শনাক্ত ৭০৯

Advertisement

করোনায় চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১৪ জনের মৃত্যু ঘটেছে। এর মধ্যে ৭ জন নগরের ও ৭ জন উপজেলা পর্যায়ের বাসিন্দা। এটিই এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে করোনায় মারা গেছেন মোট ৭৭১ জন। এর মধ্যে ৪৯৭ জন নগরের ও ২৭৪ জন উপজেলার বাসিন্দা।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে করোনাভাইরাসে শনাক্ত হয়েছেন ৭০৯ জন। নতুন শনাক্তদের মধ্যে ৪১৬ জন নগরের ও ২৯৩ জন উপজেলার বাসিন্দা। জেলায় এখন পর্যন্ত ৬৫ হাজার ৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৫০ হাজার ১৩৪ জন নগরের ও ১৪ হাজার ৮৭৪ জন উপজেলা পর্যায়ের বাসিন্দা।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৪ জনের মধ্যে ৮ জন পুরুষ ও ৬ জন নারী। উপজেলায় মৃতদের ৭ জনের মধ্যে মিরসরাই ও হাটহাজারীর বাসিন্দা দুইজন, সীতাকুণ্ড, রাঙ্গুনিয়া ও বোয়ালখালীর ১ জন করে ৷ 

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৯টি ল্যাবে ২ হাজার ৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৬২০ জনের মধ্যে ১৭৬ জন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৩৫৭ জনের মধ্যে ১৪২ জন, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩৬ জনের মধ্যে ৩ জন, ৬৬৮ জনের এন্টিজেন টেস্টে ২২৪ জন, শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ২০৩ জনের মধ্যে ৫৩ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৪৯ জনের মধ্যে ২১ জন, জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৪৯ জনের মধ্যে ৩৬ জন, মেডিকেল সেন্টারে ৩১ জনের মধ্যে ১৬ জন এবং এপিক হেলথ কেয়ার ল্যাবে ৬৯ জনের মধ্যে ৩৮ জনের করোনা পজিটিভ ফল পাওয়া যায়।

উপজেলার মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা- লোহাগড়ায় ৪ জন, সাতকানিয়ায় ১৫ জন, বাঁশখালীতে ৮ জন, আনোয়ারায় ১ জন, চন্দনাইশে ২৯ জন, পটিয়ায় ১৪ জন, বোয়ালখালীতে ১১ জন, রাঙ্গুনিয়ায় ১৮ জন, রাউজানে ১৯ জন, ফটিকছড়িতে ২৩ জন, হাটহাজারীতে ৪৮ জন, সীতাকুণ্ডে ৫৪ জন, মিরসরাইয়ে ৩৩ জন ও সন্দ্বীপে ১৬ জন।

এছাড়া একই দিন করোনা আক্রান্তদের মধ্যে আরো ১৩০ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। যাদের মধ্যে ৯০ জন উপজেলার বাসিন্দা আর বাকি ৪০ জন নগরের বাসিন্দা।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রামে গত বছরের ৩ এপ্রিল প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ৯ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম এক ব্যক্তি মারা যান।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisementspot_img
Advertisement

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

Advertisement